আলোচিত সংবাদ

বিছানার নীচ থেকে ফোঁস করে ফনা তুলে বেরিয়ে আসল বিশাল কোবরা সাপ, ঘটল বিপত্তি, তুমুল ভাইরাল ভিডিও

সাপকে ভয় পান না এমন মানুষ খুবই কম আছেন। সাপের নাম শুনলেই আমাদের শরীরে এক শিহরণ খেলে যায়। রোগা লম্বা হিলহিলে বিষধর, অবতারটি আমাদের অবচেতন মনে ভেসে উঠলে শরীরে এবং মনে ভয়ের সঞ্চার হয়।

পুরানে অনেক উপকথায় সর্প জাতির উল্লেখ পাওয়া যায়। বিশেষ করে হিন্দু ধর্মে মহাদেবের গলায় স্বয়ং বাসুকি নাগ অবস্থান করেন।মহাবিষ্ণু শ্বেত নাগ এর উপর মহা নিদ্রায় শায়িত, এমনকি মা মনসার বাহন হল সাপ, চা নিয়ে রচিত হয়েছে “মনসামঙ্গল”। সা,প, নিয়ে আজও কিছু মানুষের মধ্যে রয়ে গেছে অনেক কুসংস্কার, আজও মনে করেন সাপের রয়েছে সম্মোহনী ক্ষমতা। সাপ সম্মোহিত করে পশুপাখিদের শিকার করে। কিন্তু কথাটি সম্পূর্ণ ভুল।

বিশেষ করে বড় সাপগুলি রোদ্রে তাদের ত্বক নিয়ে শুয়ে থাকে, তাহলে ত্বকের আঁশগুলি চকচক করে অত্যন্ত আকর্ষণীয় দেখায়।সেগুলি দেখি আকৃষ্ট হয়ে অন্যান্য পশুপাখিরা যখন কাছাকাছি যায় তখনই তারা তাদের ধরে এবং গিলে ফেলে। কিন্তু সাপের মত নিরীহ প্রাণী আর হয় না। শুধুমাত্র আত্মরক্ষা ও শিকারের জন্য সা,প, অন্য পশু-পাখিদের উপর আক্রমণ করে।

পিটিয়ে মেরে ফেলেন অথবা গুরুতরভাবে আঘাত করে দেন। এই ক্ষেত্রেই বিশেষ কিছু মানুষ যারা সর্প বিশেষজ্ঞ তারা সেইসব সাপকে উ,দ্ধা,র, করে রক্ষা করেন, তাদের বলা হয় সর্প রক্ষক। তারা লোকালয় গিয়ে সেই সব সাপেদের রক্ষা করেন এবং তাদের সঠিক জায়গায় ছেড়ে দেন যাতে সা,প,গু,লো, নিরাপদে বসবাস করতে পারে। তবে সর্প রক্ষক হতে গেলে চাই দীর্ঘদিনের ট্রেনিং এবং সর্প প্রজাতি সম্পর্কে সঠিক জ্ঞান।

এ রকমই একজন সর্প রক্ষক হলেন মির্জা মোহাম্মদ আরিফ। তাকে আমরা প্রায়ই তার অফিসিয়াল ইউটিউব ভিডিও চ্যানেল থেকে দেখে থাকি। সেখানে তিনি তার সাপ ধরার বিভিন্ন ভিডিওগুলি পোস্ট করেন। তার ভিডিও গুলো দেখলে সত্যিই অবাক হতে হয়।তার দুঃসাহসিক ভিডিওগুলি বারবার আমাদের মুগ্ধ করে। কিছুদিন আগেই তার ভাইরাল একটি ভিডিওতে দেখা যাচ্ছিল, তিনি তার সংরক্ষিত সমস্ত সা,প,গু,লো,কে, নিরাপদ স্থানে মুক্ত করে দিচ্ছেন।

সমস্ত সবগুলি অত্যন্ত আনন্দের সঙ্গেই স্বাধীনতা পেয়ে ধীরে ধীরে চলে গেল নিজের জায়গায়। বিশেষ করে মানুষ বিষধর নাভি সহিন সেগুলি বুঝে উঠার আগেই সাপকে মেরে ফেলে, সেদিকে মির্জা মহাম্মদ আরিফ সেই সমস্ত সাপগুলোকে রক্ষা করে মানবিকতার পরিচয় দিয়েছেন বারবার।
আমাদের শোবার ঘরটি আমাদের কাছে এক অত্যন্ত নিরাপদ স্থান। বিশেষ করে রাতের বেলায় শোয়ার সময়টি আমাদের অত্যন্ত প্রিয়।

কিন্তু সেখানেই যদি রাত্রিবেলায় দেখেন, আপনার ঘরে ঢুকে আছে এক বিশাল বড় কোবরা সাপ? সম্প্রতি ভাইরাল একটি ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, মির্জা মহাম্মদ আরিফ একটি স্থানে গৃহকর্তার বাড়িতে গিয়ে দেখছেন, তার শোবার ঘরে আলমারির পিছনে ঢুকে রয়েছে এক বিশাল বড় কোবরা সা-প।সেটি ড্রেসিং টেবিলের পেছনে স্ট্যান্ড এর সঙ্গে কুণ্ডলী কৃত অবস্থায় রয়েছে। আরিফ সা,প,টি,কে, ধরতে যেতেই সে বারবার আরিফকে ছোবল মা,র,তে, থাকে,

কিন্তু প্রতিবারই আরিফ একটুর জন্য রক্ষা পেয়ে যান। সাপটি বিশাল বড় ফণা তুলে মুখে গর্জন করতে থাকে, সাপটিকে কিছুতেই ধরা যাচ্ছিলোনা, শেষ পর্যন্ত আরিফ অনেক কষ্টের সাপটিকে ধরতে সক্ষম হন।তিনি সাপটিকে বাড়ির বাইরে নিয়ে আসেন এবং সেই সম্পর্কে অনেক গুরুত্বপূর্ণ তথ্য প্রদান করেন। তিনি বলেন, যেহেতু এটি ওদের প্রজননের সময় তাই এরা সাধারণত ভিজে মাটি গর্ত এবং ঘরের মধ্যে থাকতে বেশি পছন্দ করে।

কিন্তু এদের যেন কোনোভাবেই মারা না হয়, সেদিকে লক্ষ্য রাখা দরকার। আরিফের এসব তথ্যগুলি দর্শককে সমৃদ্ধ করেছে। আরিফের কথাগুলি মুগ্ধ করেছে তাদের। ভিডিওটি পোস্ট করা হয়েছে আরিফ এর অফিসিয়াল ইউটিউব চ্যানেল থেকে। হাজার হাজার মানুষ ভিডিওটি লাইক করেছেন। তবে অনেকেই আরিফকে বলেছেন, তিনি যেন সাপটিকে নিরাপদে পলিথিনের ব্যাগে ভরে তবে এই তথ্যগুলি যেন বলেন।

পৃথিবীতে প্রত্যেকটি প্রজাতির বাঁচার অধিকার রয়েছে। পশুপাখির সমাজে নেই কোন হিংসা, নেই কোন দ্বেষ, তাদের মধ্যে শুধুমাত্র খাদ্য-খাদক সম্পর্ক। কিন্তু মানুষের অধিকারে দিনের-পর-দিন পৃথিবীতে পশু পাখির সমাজে অনেক প্রজাতি বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে, এর ফলে পৃথিবী তার ভারসাম্য হারিয়েছে, বাস্তু তন্ত্রের শৃংখল আজ ভগ্নপ্রায়। সেক্ষেত্রে এই মুহূর্তে আমাদের সাবধান হওয়া উচিত, নচেৎ তার ফল হবে ভবিষ্যতে মারাত্মক।

Related Articles

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!