আলোচিত সংবাদ

‘মুরগির র’ক্ত দেখলে আঁতকে উঠতেন’ মৃ’ত্যুদ’ণ্ডপ্রাপ্ত আ’সামি ইফতি!

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ছাত্র আবরার ফাহাদ হ’ত্যা মা’মলায় ২০ জনের ফাঁ’সির আদেশ দিয়েছেন আ’দালত। এ ছাড়া এ মা’মলার অ’পর পাঁচ আ’সামির যাব’জ্জীবন কারাদ’ণ্ড দেওয়া হয়েছে।

ট্রাইব্যুনাল ১-এর বিচারক আবু জাফর মো. কাম’রুজ্জামান বুধবার দুপুরে চাঞ্চল্যকর এ হ’ত্যা মা’মলার রায় ঘোষণা করেন।

মৃ’ত্যুদ’ণ্ড প্রাপ্তদের মধ্যে রয়েছেন, বুয়েট ছাত্রলীগের উপসমাজসেবা সম্পাদক ইফতি মোশারফ সকাল। সকাল রাজবাড়ী জে’লা শহরের লক্ষিকোল এলাকার মৃ’ত ফকির মোশারফ হোসেনের ছে’লে। সকাল বুয়েটের তৃতীয় বর্ষের বায়োমেডিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং ১৬তম ব্যাচের শিক্ষার্থী ছিলেন।

এদিকে, রায় ঘোষণার পর তার বাড়াতে গিয়ে দেখা যায় শুনশান নিরাবতা। ঘরে সকালের ছোট ভাই এসএসসি পরীক্ষার্থী রাফি মোশারফ স্বপ্নিল ছাড়া কেউ ছিলো না। তার মা রাবেয়া মোশারফ অবস্থান করছিলেন ঢাকায়।

এ সময় পাশের বাড়িতে থাকা ইফতি মোশারফের চাচা আব্দুস সালাম ফকির জানান, আ’দালতের রায় তাদের মনপুত হয়নি। যে কারণে তারা উচ্চ আ’দালতে আপিল করবেন।

তিনি বলেন, ‘ইফতি ছোটবেলা থেকেই মেধাবী ছাত্র। এইচএসসি পাস করার পর মেডিক্যল ও বুয়েটে ভর্তির সুযোগ পায়। কা’টা ছেড়া করতে হবে ভেবে সে মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি হয়নি। মূলত ইফতি মুরগি জবাই করতেও ভ’য় পায়। যে ছে’লে মুরগির র’ক্ত দেখলে আঁতকে উঠতো সে এমন ঘটনায় জড়িয়ে পরবে তা ভেবে পাচ্ছি না।’

এদিকে, রায়ে আবরারের বাবা সন্তুষ্টি প্রকাশ করলেও খুশি হতে পারেননি মা রোকেয়া খাতুন। তিনি বলেন, হ’ত্যাকা’ণ্ডের মূলহোতা অমিত সাহার মৃ’ত্যুদ’ণ্ড দাবিতে আপিল করা হবে।

Related Articles

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!