আলোচিত সংবাদ

বৈদ্যুতিক খুটির ওপর ওঠে বসে আ’ছে গে’রিলা! নামাতে ব্যা’স্ত নিরাপত্তাকর্মী ভিডিও ভাইরাল

গরিলাদেরকে দুইটি প্রজাতিতে ভাগ করা হয়। মানুষের সাথে গরিলার ডিএনএ-এর প্রায় ৯৭-৯৮% মিল রয়েছে। [২][৩]। শিম্পাঞ্জীদের পরে এরাই মানুষের নিকটতম সমগোত্রীয় প্রাণী।

গরিলারা নিরক্ষীয় বা উপনিরক্ষীয় বনাঞ্চলে বাস করে। পাহাড়ী গরিলা আফ্রিকার আলবার্টাইন রিফ পর্বতে বাস করে, সমূদ্রসমতল হতে যে এলাকার উচ্চতা প্রায় ২২২৫ হতে ৪২৬৭ মিটার। সমতলের গরিলারা ঘন জঙ্গলে বাস করে।

পশ্চিম আফ্রিকান গরিলা দুই থেকে বিশ জনের দলে বাস করে থাকে। এই জাতীয় দলগুলি কমপক্ষে একটি পুরুষ, বেশ কয়েকটি স্ত্রী এবং তাদের সন্তানদের সমন্বয়ে গঠিত।

একটি প্রভাবশালী রৌপ্যপিঠের পুরুষ দলটির নেতৃত্ব দেয় এবং কম বয়স্ক পুরুষরা সাধারণত পূর্ণতায় পৌঁছালে দল ছেড়ে চলে যায়। স্ত্রী গরিলা প্রজননের আগে অন্য দলে স্থানান্তরিত হয় এবং তা তাদের আট থেকে নয় বছর বয়সে শুরু হয়। তারা তাদের জীবনের প্রথম তিন থেকে চার বছরের জন্য তাদের শিশুটির যত্ন করে।

জন্মের মধ্যবর্তী ব্যবধান দীর্ঘ হওয়ায় এদের জনসংখ্যা বৃদ্ধির হারকে কম করেছে। ফলে পশ্চিম আফ্রিকান গরিলার সংখ্যা বর্তমানে ঝুঁকিপূর্ণ। দীর্ঘ গর্ভকালীন সময়, পিতামাতার যত্নের দীর্ঘ সময় এবং শিশু মৃত্যুর কারণে একটি স্ত্রী গরিলা কেবল ছয় থেকে আট বছরে পরিপূর্ণতা প্রাপ্ত হয় এবং একটি সন্তানের জন্ম দেয়। গরিলা দীর্ঘজিবী এবং বন্য পরিবেশে তারা ৪০ বছর পর্যন্ত বেঁচে থাকতে পারে।

ভিডিও দেখতে এখানে ক্লিক করুন…

Related Articles

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!