আলোচিত সংবাদ

বাবার লাশ বাড়িতে রেখে পরীক্ষার দেওয়া সেই সিনথিয়া পাস করেছে

নরসিংদী জেলা পলাশে বাড়িতে বাবার লাশ রেখে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নেওয়া সেই সিনথিয়া পাস করেছে। বৃহস্পতিবার (৩০ ডিসেম্বর) মাধ্যমিক পরিক্ষার ফলাফল প্রকাশ হলে এতে সিনথিয়া কবির জিপিএ ৪ দশমিক ৯৪ পেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছে। সিনথিয়ার এই ফলাফলে খুশি সহপাঠী ও শিক্ষকরা।

তবে পরীক্ষার পাসের খবর শুনে সবচেয়ে বেশি যিনি খুশি হতেন, সেই বাবাকে হারিয়ে আনন্দের মাঝেও শোকের কালো ছায়া রয়ে গেছে সিনথিয়ার মাঝে। গতকাল বৃহস্পতিবার (৩০ ডিসেম্বর) দুপুরে পরীক্ষায় পাসের খবর শুনে বাবার কবরের পাশে ছুটে যান সিনথিয়া কবির। সেখানে বাবার জন্য দোয়া করে পরিবারের সঙ্গে পাসের আনন্দ ভাগ করে নেন।

সিনথিয়া কবির গণমাধ্যমকে বলেন, পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশের সময় বারবার বাবার কথা মনে পড়ছিল। প্রতিবারই বাবাই আমার পরীক্ষার ফলাফল জেনে আসত। এবার বাবা নেই বলে নিজের ফলাফল নিজেই আনতে হলো। তিনি আরও বলেন, তার বাবার স্বপ্ন ছিল তাকে ডাক্তার বানাবে। বাবা মারা যাওয়ায় সেই স্বপ্ন আর সত্যি হলো না।

সিনথিয়ার মা সালমা আক্তার গণমাধ্যমকে বলেন, দুই মেয়ে ও এক ছেলের মধ্যে সিনথিয়া সবার বড়। পরিবারের আয়ের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি ছিল হুমায়ুন কবির। তাকে হারিয়ে এখন পরিবারের সদস্যদের ভরণপোষণেই সমস্যা হচ্ছে। মেয়ের উচ্চশিক্ষা নিয়ে শঙ্কার মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন তারা।

পলাশ জনতা আদর্শ বিদ্যাপীঠের প্রধান শিক্ষক মো. মাসুদ খান গণমাধ্যমকে বলেন, বিদ্যালয়ের শতভাগ পরীক্ষার্থী কৃতকার্য হয়েছে। এর মধ্যে সবার প্রথম সিনথিয়ার ফলাফল নিয়ে শঙ্কায় ছিলাম। মেয়েটা বাবার মরদেহ রেখে পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিল। ফলাফলের খবর শুনে ভাল লাগলো। সিনথিয়া অল্প কিছু নম্বরের জন্য জিপিএ ৫ পায়নি। তবে এই পরিস্থিতিতে যটতুটু ফলাফল অর্জন করেছে তা অনেক ভালো করেছে।

জনতা জুটমিল লিমিটেডের জিএম মো. গোলাম সারোয়ার জাহান বলেন, সিনথিয়ার বাবা হুমায়ুন কবির জুটমিলে কোয়ালিটি অফিসার পদে দায়িত্বে ছিলেন। মারা যাওয়ার আগের রাতেও তিনি কর্মস্থানে ছিলেন। তার মৃত্যুর পর প্রতিষ্ঠান থেকে তাৎক্ষণিক পরিবারটিকে মাসিকভাবে আর্থিক সহযোগিতার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া সিনথিয়ার উচ্চশিক্ষা গ্রহণেও প্রতিষ্ঠান থেকে সব ধরনের সহযোগিতা থাকবে।

এর আগে ১৪ নভেম্বর বাবার লাশ বাড়িতে রেখে এসএসসি পরীক্ষায় বসেন সিনথিয়া কবির। সিনথিয়া পরীক্ষায় অংশ নিয়ে এক হাতে চোখ মুছে চলেছেন আর অন্য হাতে কলম চালায় পরিক্ষার খাতায়।

Related Articles

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!