বিনোদন

আমা'র ব্যক্তিগত ভিডিও লিক করার অধিকার কারও নেই: পরীমনি

ব্যক্তিগত গোপন তথ্য প্রকাশ হওয়া নিয়ে বির'ক্ত ঢাকাই সিনেমা'র জনপ্রিয় নায়িকা পরীমনি। বিশেষ করে রি'মান্ডে তার দেওয়া তথ্য প্রকাশ হওয়ায় বিব্রত তিনি।

২৭ দিন কারাভোগের পর বুধবার ছাড়া পেয়ে যুগান্তরকে এসব কথা বলেন পরীমনি।রি;মা;ন্ডের অ'ভিজ্ঞতা নিয়ে ঢালিউড নায়িকা বলেন, সেভাবে হয়'রানি করেনি তারা আমাকে। কি হয়েছে সবই আমি বলব। ফোন, গাড়ি সব সিআইডিতেই আছে।

যেসব ভিডিও বাইরে এসেছে সেগুলো ওই ফোনেই ছিল। তিনি বলেন, আমা'র ব্যক্তিগত ভিডিও লিক করার রাইটস কারও নেই। তাও আমা'র ফোন থেকে। আমা'র বাসার সিসিটিভি ফুটেজও নিয়ে যায়।

অনেক তো হলো। সবকিছুই তো একটা জায়গায় শান্ত হওয়া উচিত। আমা'র থাকার জায়গাটা পর্যন্ত ছাড়তে না। আমি টায়ার্ড হয়ে যাই মাঝে মাঝে। কতক্ষণ পারা যায় এভাবে?আ'দালতে চি'ৎকার করে প্রতিবাদ জানানোর প্রসঙ্গে তিনি বলেন, চোখের সামনে আমাকে ফাঁ'সিয়ে দিয়েছে, আমি বলব না?

আরে আমাকে যখন এখান (বাসা) থেকে নেয় তখন আমি জানি নাকি যে, আমাকে গ্রে'ফতারের জন্য নেয়। কত নাট'ক করে আমাকে এখান থেকে নিল। বলল, জাস্ট অফিসে যাবেন, কথা বলবেন, চলে আসবেন। ওমা, পরদিন দেখি পরীমনি গ্রে'ফতার। আমি বুঝলাম না কিসের জন্য। এগুলো অনেক কথা। সব বলব আমি।

গণমাধ্যমের ওপর বির'ক্ত পরীমনি বলেন, সবাই পরিচয় দিচ্ছেন সাংবাদিক। সবাই কি সাংবাদিক? মোবাইল হাতে নিলেই কি সাংবাদিক হয়ে যায়? এরা কেউ আসলে সাংবাদিক না।

বেশিরভাগ ইউটিউবে কন্টেন্ট বানায় তারা। ফ্ল্যাটের লোকজন তাদের সরে যাওয়ার অনু;রোধ করলেও তারা না সরে সাংবাদিক পরিচয়ে দাঁড়িয়ে থাকে।সাংবাদিক বলে অন্য ফ্ল্যাটের লোকজনকে হু;মকি-ধ;মকি দিচ্ছে। আসলে এসব করে তারা ইউটিউব কন্টেন্ট বানাবে। রসালো হেডিং দেবে।

‘শারীরিক অবস্থা এখন কেমন’- এমন প্রশ্নের উত্তরে মৃদু হাসিতে পরীমনি বলেন, পাগল পাগল হয়ে গেছি। ছাড়া পাওয়ার আগের রাতে এক্সাইটমেন্টে ঘুম হয়নি।

আমাদের সঙ্গে যারা ছিল ওদের কেউ কেউ নামাজ পড়ছিল, কেউ জেগে ছিল। ওদের সঙ্গেও একটা স'ম্পর্ক হয়ে গিয়েছিল। ফজরের আগে ভাবলাম দুই ঘণ্টা ঘুমাই, ৮টার সময়ে হয়তো ডাকবে।

ওমা, ফজরের আজানের পরই শুরু হয়েছে একজনের পর একজন আসা। একজন বলছে রেডি হও, যেতে হবে। একটা ফোঁটাও আমি ঘুমাইনি। গাড়িতে একটুখানি চোখটা বন্ধ হয়েছিল।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!